25 September, 2021 (Saturday)
শিরোনাম

বাংলাদেশের শাম্মী কুদ্দুস এখন লাখো মেয়েদের অনুপ্রেরণা

প্রকাশিতঃ 24-07-2021



নিউজ ডেস্ক : টেক জায়ান্ট গুগলে কাজ করা অনেকের কাছে স্বপ্ন মনে হলেও সেটিকে তুড়ি মেরে সত্যি করেছেন বাংলাদেশের চট্টগ্রামের মেয়ে শাম্মী কুদ্দুস। শুধু যে সত্যি করেছেন, তা নয়। দোর্দণ্ড প্রতাপের সাথে এগিয়েও চলেছেন সামনের দিকে, হয়ে উঠেছেন লাখো তরুণীর অনুপ্রেরণা।

দুই সন্তানের জননী শাম্মী স্ট্যানফোর্ড জিএসবি ও হার্ভার্ড কেনেডি স্কুল থেকে যথাক্রমে এমবিএ এবং এমপেইড ডিগ্রি লাভ করেন। স্যাট পরীক্ষায় ভালো করার কারণে বৃত্তি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে পড়তে যান তিনি এবং এমআইটি থেকে পরিবেশ প্রকৌশলে স্নাতক সম্পন্ন করেন। বর্তমানে স্বামী ও সন্তানদের নিয়ে ক্যালিফোর্নিয়ার সানিভেলে থাকেন। সেখানে তিনি গুগলের পণ্য ব্যবস্থাপক হিসেবে কাজ করছেন।

শাম্মী গুগলে প্রথমে কাস্টমার ইনসাইটস ম্যানেজার হিসেবে নিয়োগ পান। এরপর পেমেন্ট প্ল্যাটফর্ম টিমে প্রোডাক্ট ম্যানেজার হিসেবে নিয়োগ পান। গুগলের মনিটাইজেশন প্রক্রিয়া নিয়ে কাজ করে থাকে পেমেন্ট প্ল্যাটফর্ম টিম। এই টিমের মাধ্যমেই কাস্টমারের কাছে গুগলের সব ধরনের আর্থিক লেনদেন হয়ে থাকে। সারা বিশ্বে গুগলের প্রডাক্ট-ইউটিউব, ম্যাপস, অ্যাডস, প্লে স্টোর, অ্যাডসেন্স প্রভৃতির ব্যবহার নিশ্চিত করার কাজ করে থাকে এই প্রডাক্ট টিম। ফিন্যানশিয়াল টেকনোলজি বিষয়ে তাঁর খুব আগ্রহ থাকায় এই টিমের সঙ্গে কাজ করে দারুণ উপভোগ করছেন শাম্মী। গুগলে ফিন্যানশিয়াল টেকনোলজি নিয়ে তাঁর কাজ বেশ প্রশংসিত হয়েছে।

২০১১ সালে দেশে ফিরে স্বামী ইজাজ আহমেদের সঙ্গে প্রতিষ্ঠা করেন বাংলাদেশ ইয়ুথ লিডারশিপ সেন্টার। এই সেন্টার তরুণদের শিক্ষাক্ষেত্রে নানা রকম সহযোগিতা করে থাকে।

শাম্মী কুদ্দুস বলেন, মা-বাবা দুজনই চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হওয়ার শৈশব কেটেছে চট্টগ্রামেই। পড়াশোনার জন্য পরিবার থেকে কোনো চাপ ছিল না বলে স্বাভাবিকভাবে নিজের মতো করে মনোযোগ দিতে পেরেছেন। বিজ্ঞানের প্রতি ছিল তার অদম্য কৌতূহল। বই পড়তেও ভালোবাসতেন শাম্মী। পরিবার তাকে বই পড়ার প্রতিও জুগিয়ে গিয়েছে অনুপ্রেরণা।

হাইস্কুলে থাকতে স্যাট ওয়ান ও টু পরীক্ষা দিয়ে শাম্মী আমেরিকার ১৪টি বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন করেছিলেন স্কলারশিপের জন্য। এদের বেশিরভাগ বিশ্ববিদ্যালয় থেকেই স্কলারশিপ পেয়েছিলাম। এরপর এমআইটিতে ভর্তি হওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। তখন ডায়াল-আপ ইন্টারনেটের সাহায্যে অ্যাপ্লিকেশন জমা দিতে অনেক সময় লাগত। এমআইটির একজন আন্ডারগ্র্যাজুয়েট হওয়া তার জীবনকে সব দিক থেকেই বদলে দিয়েছে।

এমআইটি থেকে পরিবেশ প্রকৌশলে বিএসসি শেষ করার পর শাম্মী প্রথমে কাজ করেন বিশ্বের সবচেয়ে বড় অবকাঠামোগত ইঞ্জিনিয়ারিং ফার্ম এইসিওএম-এ ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে। ২০১১ সালে ওয়াটারহেলথ ইন্টারন্যাশনালের বাংলাদেশ টিমে কাজ করেন তিনি। সে সময় ওই টিম চট্টগ্রামে পানির সুবিধা নিয়ে কাজ করেছিল। স্ট্যানফোর্ড জিএসবি ও হার্ভার্ড কেনেডি স্কুল থেকে এমবিএ ও এমপেইড ডিগ্রি গ্রহণের পরে গুগলে যোগ দেন তিনি। যেখানে বর্তমানে তাদের পেমেন্ট প্ল্যাটফর্ম টিমের পণ্য ব্যবস্থাপক হিসেবে কাজ করছেন। তাদের এই দলটি গুগলের সব নগদীকরণ প্রক্রিয়া নিয়ে কাজ করে।




Social Media

মন্তব্য করুন:





সর্বশেষ খবর





সর্বাধিক পঠিত



এই বিভাগের আরও খবর

আরও সংবাদ