25 September, 2021 (Saturday)
শিরোনাম

‘আঠারো বছর বয়স কী দুঃসহ স্পর্ধায় নেয় মাথা তোলবার ঝুঁকি’

প্রকাশিতঃ 14-09-2021



স্পোর্টস ডেস্ক : ইউএস ওপেনের নারী এককে ইতিহাস গড়ে চ্যাম্পিয়ন হলেন ১৮ বছরের এমা রাডুকানু। ৬-৪, ৬-৩ ব্যবধানে সরাসরি সেটে কানাডিয়ান প্রতিপক্ষ লেইলা ফার্নান্দেজকে উড়িয়ে দিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন এই ব্রিটিশ তরুণী। কোয়ালিফায়ার থেকে উঠে আসা কোনো টেনিস খেলোয়াড় এর আগে গ্র্যান্ডস্ল্যাম জিততে পারেননি। রাডুকানুই প্রথম। নিজের দ্বিতীয় গ্র্যান্ডস্ল্যামেই বাজিমাত করলেন অবাছাই এই অষ্টাদশী।

পুরো ইউএস ওপেনে প্রতিপক্ষ তো বটেই, চোটের কাছেও একটি বারের জন্য নোয়ালেন না মাথা, শেষটায় পদাঘাতে ভাঙলেন পাথর বাধা। তাতেই গড়া হয়ে গেল ইতিহাস। বাছাইপর্ব পেরিয়ে এসে শিরোপা জেতার কীর্তি যে ইউএস ওপেন টেনিসের ১৪০ বছরের ইতিহাসে নেই একটিও!
 
১৯৯৯ সালের পর এবারই প্রথম ইউএস ওপেনে মেয়েদের শিরোপার লড়াইয়ে মুখোমুখি হয়েছিল দুই অবাছাই টেনিস খেলোয়াড়। দুজনই অষ্টাদশী। আজ থেকে ২২ বছর আগে এভাবেই ইউএস ওপেনের ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল দুই ‘অবাছাই’—সেরেনা উইলিয়ামস ও মার্টিনা হিঙ্গিস। শেষ হাসিটা হেসেছিলেন সেরেনাই। দুই ‘অবাছাই’ পরবর্তীতে টেনিসের বড় তারকা হয়েছিলেন, সেটি সকলেরই জানা। এবার রাডুকানু আর লেইলা ফার্নান্দেজের ফাইনালটাকেও টেনিস সার্কিটে ‘নতুনের আবাহন’ হিসেবে দেখা হচ্ছিল।

রাডুকানুর শিরোপাজয়ের যাত্রাপথটা দুর্দান্তই। কোয়ালিফাইয়ার থেকে শিরোপা জয়—এ সময় মোট ১০টি ম্যাচ খেলতে হয়েছে তাঁকে। তিনটি ম্যাচ ছিল কোয়ালিফাইয়ারে, বাকি সাতটি ম্যাচ মূলপ্রতিযোগিতায়। বেশ কয়েকজন বড় নামের মুখোমুখি হয়েছেন তিনি। দারুণ ব্যাপারটা হচ্ছে, যার সঙ্গেই খেলা হোক না কেন, এই দশটি ম্যাচে একটি সেটও হারেননি রাডুকানু। তালিকার ১৫০তম টেনিস খেলোয়াড়ের শিরোপাজয়ের যাত্রাপথটা এত মসৃণ হতে পারে—এবারের ইউএস ওপেন সেটি দেখিয়ে দিল।

রোমানিয়ান বাবা ও চীনা মায়ের সন্তান রাডুকানুই এখন ইউএস ওপেনের নতুন রানি। এ অর্জনের পর কিশোরী খেলোয়াড়টি ভাসছেন অভিনন্দনের জোয়ারে। খোদ ব্রিটেনের রানী এলিজাবেথ তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। রানী এলিজাবেথ অভিনন্দন জানিয়ে বলেছেন, তোমার সাফল্যে আমি তোমাকে অভিনন্দন জানাই। এমন অল্প বয়সে এটা স্মরণীয় এক অর্জন। এটা তোমার কঠোর পরিশ্রম আর ইচ্ছাশক্তিরই প্রতিফলন। বিবৃতিতে রানী আরো বলেন, তোমার অবিশ্বাস্য পারফরম্যান্স নিয়ে আমার কোনো সংশয় নেই। আশাকরি তুমি এবং তোমার প্রতিদ্বন্দ্বী লেইলাহ ফার্নান্দেজ টেনিসের পরবর্তী প্রজন্মেকে অনুপ্রাণিত করতে পারবে।

ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন আগেই জানিয়ে রেখেছিলেন, রাডুকানুর জন্য গোটা দেশ চিত্কার করবে। এবার ব্রিটেনের জয় শেষে তিনি টুইট করেছেন, কী উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচ! এমা রাডু কানুকে অনেক অনেক অভিনন্দন। তুমি অনন্যসাধারণ স্কিল, ধৈর্য্য এবং সাহস দেখিয়েছে। আমরা তোমার জন্য গর্বিত।

‘আঠারো বছর বয়স কী দুঃসহ/স্পর্ধায় নেয় মাথা তোলবার ঝুঁকি/আঠারো বছর বয়সেই অহরহ/বিরাট দুঃসাহসেরা দেয় যে উঁকি’ - সুকান্ত ভট্টাচার্যের পঙক্তি চতুষ্টয় যেন এমা রাদুকানুর ক্ষেত্রে দারুণভাবে সত্য।




Social Media

মন্তব্য করুন:





সর্বশেষ খবর





সর্বাধিক পঠিত



এই বিভাগের আরও খবর

আরও সংবাদ