30 November, 2021 (Tuesday)
শিরোনাম

কি হতে পারে ফেসবুকের বিকল্প?

প্রকাশিতঃ 06-10-2021



অনলাইন ডেস্ক : ‘Sorry, something went wrong. We are working on it and we will get it fixed as soon as possible’ গত সোমবার (০৪ অক্টোবর) সকল ফেসবুক ব্যবহারকারীদের লগ ইন পেজে এমন বার্তাই ভেসে ওঠে। বার্তাটি দেখে চমকে ওঠেন ফেসবুক ব্যবহারকারীরা। সার্ভার ডাউনের কারণে এদিন রাত সাড়ে ৯টা থেকে তারা ফেসবুকে ঢুকতে পারছিলেন না। ফলে সক্রিয় ব্যবহারকারীদের জন্য সোমবার (৪ অক্টোবর) রাতটি ছিল দুঃসংবাদের। বিশ্বের প্রায় ৩০০ কোটি মানুষ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি ব্যবহার করে। যার মধ্যে বাংলাদেশে ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৪ কোটি ৮০ লাখ।

স্বাভাবিক কারণেই বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তোলপাড় সৃষ্টি করে। বিশ্বব্যাপী মানুষে মানুষে যোগাযোগের বিষয়টি সাময়িক বিপর্যয়ের মুখে পড়ে। এদিকে ফেসবুকের দেওয়া বার্তাটি জনমনে স্বস্তির জায়গা তৈরি করলেও তারা টেনশন নিয়ে অপেক্ষা করতে থাকেন কখন এই দুঃসময়ের অবসান ঘটবে। কখন তারা সামাজিক যোগাযোগের জনপ্রিয় এই মাধ্যমটিকে আবার ব্যবহার করতে পারবেন।

হোয়াটসঅ্যাপ বন্ধ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ব্যবহারকারীরা তাৎক্ষণিক টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল ব্যবহার করে বার্তা পাঠাচ্ছেন। হোয়াটসঅ্যাপ গোপনীয়তা বিতর্কের পর, এ দুটি অ্যাপই সর্বাধিক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। হোয়াটসঅ্যাপ বন্ধ হওয়ার পরে এই অ্যাপগুলো প্রচুর ব্যবহার করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে টুইটারে তাদের অ্যাপটি ব্যবহার করতে সবাইকে আমন্ত্রণ জানিয়েছে সিগন্যাল।

চলুন জেনে নেয়া যাক ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ কিংবা ইন্সটাগ্রামের বিকল্প সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবে ব্যাবহারকারীরা কোন অ্যাপগুলো ব্যাবহার করতে পারেন-

টুইটার

ফেসবুকের সবচেয়ে বড় প্রতিদ্বন্দী টুইটার। এটি ফেসবুকের মতোই আরেকটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। ফেসবুকের মতো টুইটারে যত ইচ্ছা তত শব্দে স্ট্যাটাস দেয়া যায় না। টুইটারের সর্বোচচ ২৮০ শব্দের স্ট্যাটাস গ্রহণযোগ্য যেটাকে টুইট বলা হয়। টুইট করার জন্য সরাসরি টুইটারের ওয়েবসাইট ব্যবহার করা যায়। এছাড়া টুইটারের রয়েছে যেকোনো প্ল্যাটফর্মে ব্যবহারের উপযোগী অ্যাপ্লিকেশন। মোবাইল ফোন বা এসএমএসের মাধ্যমেও টুইট লেখার সুযোগ রয়েছে।  টুইটার মূলত একটি মাইক্রো ব্লগিং সাইট। টুইটারের সদস্যরা অন্য সদস্যদের টুইট পড়ার জন্য নিবন্ধন করতে পারেন। এই কাজটিকে বলা হয় অনুসরণ করা। কোনো সদস্যের টুইট পড়ার জন্য যারা নিবন্ধন করেছে, তাদেরকে বলা হয় অনুসরণকারী।

২০০৬ সালের মার্চ মাসে টুইটারের যাত্রা শুরু হয়। তবে ২০০৬ এর জুলাই মাসে জ্যাক ডর্সি আনুষ্ঠানিকভাবে এর উদ্বোধন করেন। টুইটার সারা বিশ্ব্জুড়ে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। টুইটার বিশ্বের দ্বিতীয় বড় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। ২০১০ সালের ৩১শে অক্টোবর নাগাদ টুইটারে ১৭৫ মিলিয়ন অর্থাৎ ১৭.৫ কোটিরও বেশি সদস্য ছিলো।

স্ন্যাপচ্যাট

স্ন্যাপচ্যাট হল ছবির মাধ্যমে বার্তা আদান প্রদান এবং মাল্টিমিডিয়া ভিত্তিক মোবাইল অ্যাপলিকেশন। যার প্রতিষ্ঠাতারা হলেন ইভান স্পিজেল, ববি মার্ফি, এবং র্যাগি ব্রাউন। তারা মূলত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া রাজ্যে অবস্থিত স্টানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়-এর প্রাক্তন ছাত্র, এবং এটি স্ন্যাপ ইনকর্পোরেশন দ্বারা উন্নীত, যেটির পুরো নাম স্ন্যাপচ্যাট ইনকর্পোরেশন।

বর্তমানে মূলত অ্যাপটি এক ব্যক্তি থেকে আরেক ব্যক্তির মধ্যে ছবি আদান প্রদান থেকে বাহির হয়ে, দিনে ২৪ ঘণ্টারঘটা সমন্তিত কালানুক্রমিক কনটেন্ট সমূহের সমাহার "স্টোরিস" নামক নতুন বৈশিষ্ট্যযুক্ত করেছে, এছাড়াও "ডিসকভার" নামক একটি বৈশিষ্ট্য যুক্ত করেছে যাতে, বিভিন্ন পন্যের ব্রান্ড সমূহ বিজ্ঞাপন-সমর্থিত সংক্ষিপ্ত আকারের বিনোদনও প্রদর্শন করে থাকে। ২০১৭ সালের মে মাসের হিসাব অনুযায়ী, স্ন্যাপচ্যাটের প্রতিদিনের সক্রিয় ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১৬৬ মিলিয়ন।

লিংকডইন 

লিংকডইন হলো একটি প্রফেশনাল নেটওয়ার্ক যা বিভিন্ন পেশাজীবী মানুষদের যুক্ত করে। এটা ব্যবহারকারীদের শেখার প্ল্যাটফর্ম হিসেবেও কাজ করে। যদিও লিংকডইন বর্তমান সময়ের অনেক জনপ্রিয় একটি সোস্যাল প্ল্যাটফর্ম, তবুও অনেকেই এর সম্পর্কে বিশেষ কিছু জানেন না।

লিংকডইনকে এক কথায় আপনি প্রফেশনালদের জন্য ফেসবুক বলতে পারেন। আপনি কোনো প্রতিষ্ঠানের মার্কেটিং এক্সিকিউটিভ হোন, কিংবা চাকরি খোঁজা ফাইনাল ইয়ারের স্টুডেন্ট, লিংকডইন সবার জন্যই কাজে আসতে পারে। লিংকডইন এ প্রফেশনালরা অন্য প্রফেশনালদের সাথে খুব সহজেই সংযুক্ত হতে পারেন। এছাড়াও যারা পেশাজীবন নতুন নতুন কেবলমাত্র শুরু করেছেন তাদের ক্যারিয়ার গড়তে অনেক সুযোগও থাকছে এখানে।

লিংকড ইন এ কাউকে এড করলে তাকে ‘connection’ বলে, যা অনেকটা ফেসবুকে ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট এক্সেপ্ট করার মতই। লিংকড ইন এ থাকা প্রাইভেট মেসেজিং কিংবা প্রোফাইলে প্রদত্ত কন্টাক্ট ইনফরমেশন ব্যবহার করে একে অপরের সাথে যোগাযোগ করতে পারবেন।

পিন্টারেস্ট 

সহজ ভাষায় বলতে গেলে এটি একটি ফটো শেয়ারিং সোশ্যাল সাইট। যেমন ফেসবুক, ইন্সটাগ্রাম বা টুইটারে আমরা ছবি শেয়ার করি তেমন ভাবেই এখানেও একটা অ্যাকাউন্ট তৈরি করে যতো খুশি ছবি ফ্রি-তে শেয়ার করতে পারি। পিন্টারেস্ট মূলত তৈরি করা হয়েছে Image, gif ও ভিডিও শেয়ারিংয়ের জন্য। এটি ছবির ভান্ডার যেখানে হাজার হাজার ছবিতে ভরে রয়েছে।

পিন্টারেস্ট ব্যবহার করা অনেক সহজ যদি আপনার কোন ব্লগ সাইট থাকে তবে এখান থেকে ব্লগ পোস্ট শেয়ার করে অনেক ভিজিটর পেতে পারেন। এছাড়াও পিন্টারেস্ট মার্কেটিং করে পিন্টারেস্ট থেকে আয় করতে পারেন।

ভাইবার 

ভাইবার হল একটি তাৎক্ষণিক বার্তা প্রেরক এবং ভয়েস ওভার আইপি (ভিওআইপি) স্মার্টফোনের অ্যাপ্লিকেশন। তাৎক্ষণিক বার্তা প্রেরন ছাড়াও ব্যবহারকারীরা ছবি, ভিডিও এবং অডিও মিডিয়া বার্তা বিনিময় করতে পারেন। ম্যাক ওএস, এনড্রয়েড, ব্ল্যাকবেরি ওএস, আইওএস, সিরিজ ৪০, সিমবিয়ান, বাডা, উইন্ডোজ ফোন এবং মাইক্রোসফট উইন্ডোজের জন্য ক্লায়েন্ট সফটওয়্যার পাওয়া যায়।

টেলিগ্রাম 

ফেসবুক মেসেঞ্জার কিংবা হোয়াটসঅ্যাপ এর মতো এটিও একটি মেসেজিং অ্যাপ যা আপনাকে টেক্সট মেসেজিং এর পাশাপাশি ভিডিও কল কিংবা ভয়েস মেসেজিং এর সুবিধাও দিয়ে থাকে। আর এখানে আশ্চর্য হওয়ার মতো বিষয় হলো এটি ২ জিবি সাইজের মধ্যে আপনাকে কোনো ফাইল শেয়ার করার সুযোগ দিয়ে থাকে যা সত্যি অনন্য। বর্তমানে সর্বশ্রেষ্ঠদের কাতারে থাকা এই টেলিগ্রাম অ্যাপটি আবিষ্কার করেন রাশিয়ার একজন উদ্যোক্তা প্যাভেল ডিউরভ।




Social Media

মন্তব্য করুন:





সর্বশেষ খবর





সর্বাধিক পঠিত



এই বিভাগের আরও খবর

আরও সংবাদ