30 November, 2021 (Tuesday)
শিরোনাম

খালেদার ব্যাপারে সরকার কি সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করবে?

প্রকাশিতঃ 24-11-2021



নিউজ ডেস্ক : বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে নানা রকম গুজব, গুঞ্জন চারিদিকে এখন সয়লাব হয়ে গেছে। গতরাতেও গুজব ছড়িয়ে পড়েছিল খালেদা জিয়া সম্পর্কে। পরবর্তীতে দেখা গেছে, এই গুজবটি সত্যি নয়। এক ধরনের গুজব সৃষ্টি করে দেশে অশান্তি সৃষ্টি করা এবং অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি করার জন্য তৎপর একটি মহল। এর বাইরে বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতাকে কেন্দ্র করে রাজপথে বিএনপি আস্তে আস্তে সরব হচ্ছে। বেগম খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে নিয়ে যাওয়ার দাবিতে বিএনপি একের পর এক বিভিন্ন কর্মসূচি জানাচ্ছে। এই কর্মসূচির পাশাপাশি বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষকে দিয়ে বিবৃতি দেয়ানো হচ্ছে। সাংস্কৃতিক কর্মীদের বিবৃতির পর সাংবাদিকদের একটি অংশের পক্ষ থেকেও বেগম খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ যাওয়ার অনুমতি দেয়ার দাবি জানানো হয়েছে। বিএনপি পন্থী আইনজীবীরা আইনমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে বেগম খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতির জন্য অনুরোধ করেছেন। কিন্তু এই সব দাবি দাওয়ার পরও সরকার এখন পর্যন্ত তার অবস্থানের কোন পরিবর্তন করেনি। বরং আইনমন্ত্রী এখন পর্যন্ত তার আগের অবস্থানেই অটল আছেন। তিনি বলেছেন যে, বর্তমান বাস্তবতায় বেগম খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ যাওয়ার অনুমতি দেয়ার কোন সুযোগ নেই।

এই পরিস্থিতিতে বেগম খালেদা জিয়ার যদি কিছু হয় তাহলে দায় দায়িত্ব সরকারের উপর বর্তাবে বলে বিএনপি হুঁশিয়ারি দিয়েছে। স্পষ্টতই বিএনপি সরকারের উপর এক ধরনের মনস্তাত্ত্বিক চাপ প্রয়োগ করছে এবং এমন ভাবে একটি আবহ  তৈরি করা হয়েছে যাতে সাধারণ মানুষের মধ্যে একটি ধারণা সৃষ্টি করা হয় যে, বেগম খালেদা জিয়ার এই অবস্থার জন্য সরকার দায়ী।  বেগম খালেদা জিয়ার পরিণতি নিয়ে রাজনৈতিক হিসেব-নিকেশও এখন বেশ জোরেশোরেই হচ্ছে। কোনোরকম রাখ-ঢাক ছাড়াই বিএনপির নেতারা খালেদা জিয়ার কিছু হলে সরকারের কি ধরনের ক্ষতি হবে বা বিএনপির কি ধরনের লাভ হবে তার হিসেব-নিকেশ করছেন। এ রকম পরিস্থিতিতে সরকার কি তার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করবে? সরকার কি শেষ পর্যন্ত নাটকীয়ভাবে বেগম খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতি দিবেন? এ নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে নানা রকম আলাপ আলোচনার খবর পাওয়া যাচ্ছে।

একদিকে সরকার বিরোধী আন্দোলনের হুমকি দেয়া হচ্ছে, অন্যদিকে বেগম জিয়ার পরিবারের সদস্যরা এবং বিএনপির একটির অংশ সরকারের সঙ্গে বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার ব্যাপারে দেন দরবার করছে। এখনও বিএনপির কেউ কেউ আশা করছে যে, শেষ পর্যন্ত হয়তো বেগম খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতি দিলেও দেয়া হতে পারে এবং কেউ কেউ বলার চেষ্টা করছেন যে, এটি যদি দেয়া হয় তাহলে পরে রাজনীতিতে একটি সুবাতাস বইতে শুরু করবে।  কিন্তু শেষ পর্যন্ত সরকার এমন একটি সিদ্ধান্ত নিবে কিনা সেটিই একটি বড় প্রশ্ন। এক্ষেত্রে সরকার একাধিক বিষয় বিবেচনা করছে বলে জানা গিয়েছে।

প্রথমত, আইনের ব্যত্যয়। এটি বেগম খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ যাওয়ার অনুমতি দেয়া হয় তবে সেটি হবে আইনের বড় ধরনের একটি ব্যত্যয় এবং এটি খারাপ নজির হিসেবে বিবেচিত হবে। এর ফলে, বিভিন্ন দণ্ডিত ব্যক্তি উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার আবেদন করবে এবং নানা রকম চেষ্টা তদবির করবে। এটি সরকারের জন্য বিব্রতকর হবে। আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে এটি হবে বড় একটি অন্তরায়।

দ্বিতীয়ত, বেগম খালেদা জিয়াকে বিদেশে নেয়া হলেই লন্ডনে পলাতক তারেক জিয়া তার সাম্প্রতিক সময়ে যে ষড়যন্ত্র সেগুলোকে আরও বাড়াবেন এবং সরকার বিরোধী আন্দোলনকে আরও জোরদার করার চেষ্টা করবে।

তৃতীয়ত, এ রকম একটি পরিস্থিতির পরে বেগম খালেদা জিয়া বিদেশে গিয়ে নাটকীয় ভাবে সুস্থ হয়ে উঠবেন এবং তখন তিনি ভোল পাল্টে সরকারকেই আক্রমণ করা শুরু করবেন। এবং সবকিছু সরকারের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে।

এই তিনটি বিষয় এড়িয়ে শেষ পর্যন্ত সরকার বেগম খালেদা জিয়ার ব্যাপারে যদি কোনো ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নেন সেটি হবে রাজনীতিতে একটি যুগান্তকারী ঘটনা। সেই সিদ্ধান্ত কি সরকার নেবে?




Social Media

মন্তব্য করুন:





সর্বশেষ খবর





সর্বাধিক পঠিত



এই বিভাগের আরও খবর

আরও সংবাদ